25 November- 2020 ।। ১১ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ ।। সকাল ১০:২৯ ।। বুধবার

খাগড়াছড়িতে নারী ও শিশু ধর্ষণ বন্ধ ও ন্যায়বিচারের দাবিতে প্রতিবাদ সমাবেশ

দহেন বিকাশ ত্রিপুরা, খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি: নারী ও শিশু ধর্ষণ বন্ধ ও ন্যায়বিচারের দাবিতে খাগড়াছড়িতে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে পার্বত্য চট্টগ্রাম উইমেন রিসোর্স নেটওয়ার্কসহ সচেতন নাগরিক সমাজ ও স্থানীয় বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা প্রতিনিধিগণ।

০৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯খ্রি. মঙ্গলবা সকালে খাগড়াছড়ি প্রেস ক্লাবের সামনে এই মানববন্ধন ও সংহতি সমাবেশ হয়। সমাবেশে সারা দেশের নারী-শিশু ধর্ষণ ও যৌন নিপীড়নের প্রতিবাদ জানান নারীরা।

সমাবেশে পার্বত্য চট্টগ্রাম উইমেন রিসোর্স নেটওয়ার্ক’র খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলার আহবায়ক ও কাবিদাং এর নির্বাহী পরিচালক মিজ. লালসা চাকমার সভাপতিত্ব বক্তব্য সংহতি বক্তব্য দেন বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন, খাগড়াছড়ি জেলা শাখার সহ-সভাপতি নমিতা চাকমা, আলো এনজিও সংস্থার নির্বাহী পরিচালক অরুন কান্তি চাকমা, মানবাধিকার কর্মী ও খাগড়াপুর মহিলা কল্যাণ সমিতির প্রতিনিধি ও বাংলাদেশ ত্রিপুরা কল্যাণ সংসদ খাগড়াছড়ি সদর আঞ্চলিক শাখার সভাপতি কাজল বরন ত্রিপুরা, খাগড়াছড়ি জেলা সদর হাসপাতাল এর ওয়ান-স্টপ-ক্রাইসিস (ওসিসি) প্রতিনিধি রনজিৎ সরকার, সাংবাদিক অপু দত্ত, সচেতন নারী সমাজের প্রতিনিধি কৃষ্টি চাকমা, নারী পক্ষ প্রতিনিধি অর্থি চাকমা, কেএমকেএস প্রতিনিধি মুক্তা ভট্টাচার্য, ইয়েস প্রতিনিধি নিশি ত্রিপুরা প্রমূখ।

বক্তারা বলেন, একের পর এক নারী ও শিশু ওপর নৃশংস নিপীড়ন, ধর্ষণ ও যৌন হয়রানির ঘটনা ঘটছে। বর্তমান পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে যে আমরা কেউ জানি না এরপর কাকে, কোথায় এমন নৃশংসতার শিকার হতে হবে? কাল হয়তো খবরের কাগজে আমরা যে কেউ ধর্ষণের শিকার হয়ে আরেকটা খবর হব। দেশে ন্যায়বিচার না থাকায় ধর্ষণের মতো অপরাধ বাড়ছে। এই রাষ্ট্রে নাগরিক হিসেবে নারীর পূর্ণ অধিকার নেই। সম্পত্তিতে, অভিভাবকত্বে, রাজনীতিতে অংশগ্রহণের ক্ষেত্রে স্বাধীনতা নেই। তিনি বলেন, ঘরে ভেতরেও শিশু ও নারীরা নিরাপদ নন। যেসমাজ-সংস্কৃতি ধর্ষক, নিপীড়ক আর অমানুষ তৈরি করে, সেই সমাজের মানসিকতা বদলাতে রাষ্ট্রের কোনো ভূমিকা নেই।

পরিশেষে, তারা কার্যতালিকায় নারীর উপর যৌন সহিংসতা ও ধর্ষণ সংক্রান্ত আইনের প্রয়োগ ও প্রতিবন্ধকতা বিষয় অন্তর্ভুক্তকরণ, নারীর উপর যৌন নির্যাতন ও ধর্ষণ সহ সকল সহিংসতা প্রতিরোধ ও প্রতিকার করতে যুগোপযোগী আইন প্রণয়ন এবং সংস্কারকরণ, সহিংসতার শিকার নারীর শারীরিক, মানসিক, সামাজিক ও অর্থনৈতিক ক্ষতি পূরণের বিধান রেখে আইন প্রনয়ন ও সংস্কারের জন্য জাতীয় সংসদের নিকট দাবি করেন।

মানববন্ধনে সঞ্চালনা করেন জাবারাং কল্যাণ সমিতির প্রকল্প সমন্বয়কারী বিনোদন ত্রিপুরা।

Sharing is caring!



এই বিভাগের আরো খবর...