24 November- 2020 ।। ১০ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ ।। দুপুর ১২:১১ ।। মঙ্গলবার

আন্তর্জাতিক শিশু শান্তি পুরুষ্কারে বাংলাদেশী

অনলাইনে কোনো শিশুকে প্রলুব্ধ বা হেয় প্রতিপন্ন করা, ভয় দেখানো ও মানসিক নির্যাতন করাকে সাইবার বুলিং বলে। বর্তমানে এটি আমাদের সমাজে সামাজিক ব্যধির মতো ছড়িয়েছে। এর হাত হতে রক্ষার জন্য আমাদের সবার উচিত শিশুদের অধিকার উন্নয়ন ও নিরাপত্তায় একযোগে কাজ করার ।

শিশুদের অধিকার উন্নয়ন ও নিরাপত্তায় অসাধারণ অবদানের জন্য প্রতিবছর আন্তর্জাতিক শিশু শান্তি পুরস্কার দেওয়া হয়। আর এ বছর এই পুরস্কারটি লাভ করে বাংলাদেশের সন্তান নড়াইলের কিশোর সাদাত রহমান । নেদারল্যান্ড এর হেগস থেকে তিনি এই পুরস্কার গ্রহণ করেন । তাকে পুরস্কার তুলে দেন ২০১৩ সালে আরেক আন্তর্জাতিক শিশু শান্তি পুরস্কার পাওয়া  মালালা ইউসুফ জাই । ২০০৫ সালে রোমে অনুষ্ঠিত নোবেল শান্তি পুরস্কার বিজয়ীদের এক শীর্ষ সম্মেলন থেকে এই পুরস্কার চালু করে ‘কিডস-রাইটস’ নামের একটি সংগঠন।  ১২ থেকে ১৮ বছর বয়সীরা ওই পুরস্কার পাওয়ার যোগ্য। এ বছর ৪২ টি দেশের ১৪২ জন শিশুর মধ্য থেকে আন্তর্জাতিক শিশু শান্তি পুরস্কার পেল বাংলাদেশের সাদাত রহমান। বাংলাদেশে প্রায় ৪৯ শতাংশ কিশোর-কিশোরী এ রকম সাইবার বুলিংয়ের শিকার। নড়াইলের কিশোর সাদাত রহমান ‘সাইবার টিনস’ নামের একটি সংগঠনের মাধ্যমে সাইবার বুলিং প্রতিহত করার চেষ্টা করে চলেছেন । তার প্রচেষ্টাকে সাধুবাধ জানিয়ে দেশের প্রত্যেকটি স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসায় এই সাইবার বুলিং প্রতিহত  টিম গড়ার চেষ্টা করি। এর মাধ্যমে সাইবার বুলিং এর মতো এমন ঘৃণ্য অপরাধ সমাজ থেকে দূর করার চেষ্টা করি ।

Sharing is caring!



এই বিভাগের আরো খবর...